সম্পাদকীয় জানুয়ারি ২০০৩

প্রচণ্ড গরম, কাঠফাটা রোদ, আকাশে ছিন্নমেঘ – তা থেকে এক পশলা বৃষ্টি। এরই মাঝে সময়ের স্রোত বেয়ে এগিয়ে চলছে আমাদের জীবন;মানবজীবন। মননশীলতা বিহীন ও মিথ্যা মানবতার জীবন। ন্যায়নীতিবর্জিত ও ভালবাসাবিহীন মুখোশধারী এক মানবতা ক্রমশঃ গ্রাস করে নিচ্ছে আমাদের জীবনকে। আজ যন্ত্র ও যান্ত্রিকতায় নিষ্পেষিত আমাদের প্রেম, ভালবাসা, শ্রদ্ধা ও সম্মানবোধ। সুখী মানুষের মুখাবয়বে যন্ত্রনির্ভর এক নিষ্ঠুর মানব সমাজ বিস্তার লাভ করছে এ পৃথিবীতে।

ময়ের বিবর্তনে মানবতা আর নৈতিকতার দীর্ঘশ্বাস দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এরই মাঝে বিশ্বজুড়ে বেজে চলছে লড়াই এর ডামাডোল। চারদিকে শুধু যুদ্ধ; প্রতিহিংসার যুদ্ধ। মানবতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ। গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার নামে সভ্যতাকে গুঁড়িয়ে দেবার যুদ্ধ। বারুদের এই ধুম্রজাল থেকে মুক্তির পথ খুঁজছে মানবতা। আর তাই আমরা আহ্বান জানাই ধ্বংসকে – সভ্যতাকে পিষ্ঠ করতে চায় যে প্রতিহিংসা, তার-ই ধ্বংস কামনা করি আমরা।

জ ঘাসের ডগায় মুক্তার মত শিশিরবিন্দুর স্পর্শ পায়না আমাদের পায়ের পাতা। ভোরের নির্মল সবুজাভ বাতাসের স্নিগ্ধতায় ভরে ওঠে না আমাদের ফুসফুস। অসীম আকাশের নিলীমা, ঘন কালো মেঘের ঝরে পড়া কান্নার ছোঁয়ায় শিহরিত হইনা আমরা। এ কেমন জীবনধারা আমাদের? এই কি মানবজীবন?

বুজ গাছ, সবুজ গ্রাম ধ্বংস হচ্ছে অপরিকল্পিতভাবে। গড়ে উঠছে ইট-কাঠ-পাথরের নগর। পাথুরে নগরের যান্ত্রিক নাগরিক আমরা কী ভাবছি – আমাদের শিশুদের জন্য? আগামী সুন্দরের জন্য? আমরা তো আয়োজন করছি এক বিষাক্ত ভবিষ্যতের। তাই কামনা করছি ধ্বংসের – অপরিকল্পিত নগরায়ন পরিকল্পনার।চাই মুক্তি। তাই কিছু ধ্বংসকে আহ্বান জানাচ্ছি আমাদের শিশুদের কল্যাণে, আগামী দিনের স্বার্থে, আমাদের সুন্দর স্বপ্নগুলোকে বাঁচিয়ে রাখার জন্যে। প্রতিহিংসার আগুন নিভিয়ে, সকল সীমাবদ্ধতাকে কাটিয়ে আমরা কি গাইতে পারিনা সাম্যের গান? পেতে পারিনা “আলোয় ভুবন ভরা“ এক পৃথিবী, সবুজ পৃথিবী। সবুজ আর সবুজ।সবুজে সবুজ…………।

কমেন্ট করুন

0