fbpx

উৎসবমুখর এক পুনর্মিলনী

পুনর্মিলনী মানেই এক অন্যরকম উত্তেজনা যেখানে জড়িয়ে থাকে হাজারো স্মৃতি ও আনন্দ। তেমনই এক আনন্দমুখর পরিবেশের সৃষ্টি হয় ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ এ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী মোতাহার হোসেন ভবন প্রাঙ্গনে। আমন্ত্রিত প্রাক্তন শিক্ষার্থীরা অনেকেই কয়েক দশক আগে ছেড়ে যাওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের চেনা পরিবেশে প্রবেশ করেন।

গত শুক্রবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগ অ্যালামনাই এসোসিয়েশন(ডুসডা) কর্তৃক আয়োজিত ৭ম পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে, তারা সকলে ফিরে এসেছিলেন তাদের আপন সেই প্রাঙ্গনে।

ডুসডা আয়োজিত পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে কাজী মোতাহার হোসেন ভবনের প্রাঙ্গন মুখরিত হয়েছিল সাবেক শিক্ষার্থীদের স্মৃতিচারনায়, ছিল সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ তাদের ও তাদের সন্তানদের জন্য খেলাধুলার আয়োজন। 

সকাল সাড়ে দশটায় বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, প্রফেসর ড. মোঃ আখতারুজ্জামান। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেছেন জনাব মাহবুব জামান, সভাপতি, ট্রাস্টি বোর্ড, DUSDAA।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য, প্রফেসর ড. মোঃ আখতারুজ্জামান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিসংখ্যান বিভাগ অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের এক্সিকিউটিভ কমিটির সেক্রেটারি জেনারেল এবং পরিসংখ্যান গবেষণা ও শিক্ষণ ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক ড. জাহিদা গুলশানের সঞ্চালনায় উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিসংখ্যান বিভাগ অ্যালামনাই এসোসিয়েশন (DUSDAA) এর ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি, জনাব মাহবুব জামান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান গবেষণা ও শিক্ষণ ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক এবং DUSDAA ট্রাস্টি বোর্ডের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ডঃ সৈয়দ শাহাদত হোসেন, পরিসংখ্যান বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক সায়েমা শারমীন, পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক এবং DUSDAA এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক লুতফর রহমান।

সকাল ৯টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এই অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের প্রায় তিন শতাধিক গ্রাজুয়েট তাঁদের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে অংশগ্রহণ করেন। করোনা মহামারির কারণে দুই বছর পুনর্মিলন অনুষ্ঠান বন্ধ থাকার কারণে বিপুল সংখ্যক গ্র্যাজুয়েট এবারের অনুষ্ঠানে অংশ গ্রহণ করেন। বিপুল পরিমান আনন্দ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপিত হয়। বড়দের জন্য স্মৃতিচারণ সহ বিভিন্ন খেলাধুলার আয়োজনের পাশাপাশি পাপেট, বল হাউজ, জাম্পিং ক্যাসল, বেলুন ফুটানো সহ ছোটদের জন্য করা নানা আয়োজনে দিনভর মুখরিত ছিল কাজী মোতাহার হোসেন ভবন প্রাঙ্গণ।

দুপুরে আনন্দ ভোজ, বিকেলে চা চক্রের সাথে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ছিল অন্যতম মূল আকর্ষণ। সন্ধ্যায় র‍্যাফল ড্র এবং সমাপনী বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। পরিসংখ্যান বিভাগে অধ্যয়নরত ৫০ জন শিক্ষার্থী  পুরো আয়োজনে ভলান্টিয়ার হিসেবে কাজ করে। তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে এতো সুন্দর একটি আয়োজন সফলভাবে সম্পূর্ণ হয়। এই আয়োজনের পৃষ্ঠপোষকতা করেছে এশিয়া ফাইবার ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, সিটি ব্যাংক লিমিটেড, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড।

প্রতিবেদক

ইসরাত জাহান নাফিছা
প্রথম বর্ষ, পরিসংখ্যান বিভাগ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

মন্তব্য করুন

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.