নিশিকাব্য

ইট পাথরের শহরটিতে সন্ধ্যা নেমেছে
বেশ কিছুক্ষণ হল।
পশু-পাখি যার যার ঘরে ফিরে গেছে।
ব্যস্ততা বেড়ে যায় মানুষের
যার যার কর্মস্থল থেকে মানুষ ঘরে ফিরছে
পিঁপড়ের ঝাঁকের মতো সারি সারি মানুষ
ঘরে ফেরার ব্যস্ততা দেখে যায় তাদের মাঝে,
লাম্পপোস্টটি আলো ছড়াতে থাকে;
রাত বাড়ে।
সবার মাঝে ঘরে ফেরার ব্যস্ততা দেখা দিলেও,
নিশাচর প্রাণীরা জাগতে শুরু করেছে
নতুন একটি দিনের সূচনা হয় তাদের জন্য।
রাত বাড়ে।
দূর দিয়ে একটি গাড়ি চলে যায় তার গন্তব্য রাতের
নিস্তব্ধতাকে ভেঙে দিয়ে,
হঠাত করেই পাড়ার কুকুরটি ডাক দিয়ে ওঠে।
রাত বাড়ে।
বেসুরো গলায় গান ধরে এক মাতাল
লাম্পপোস্টটাকে উদ্দেশ্য করে কিছু উপদেশও
উপহার দেয় মাতালটি।
রাত বাড়ে।
এরই মধ্যে নিজের কর্মক্ষেত্র সৃষ্টি করে নিয়েছে,
রাতের পৃথিবীর অন্যতম বাসিন্দা নিশিকন্যাটি।
বড় অবসন্ন, বড় ক্লান্ত লাগে তাকে।
যদিও কিছুক্ষণ আগেও অন্য দুনিয়ায় চলে গিয়েছিল সে।
রাত বাড়ে।
রুপোর থালার মতো চাঁদটা ডুবে যায়।
রাতের পৃথিবী ঘুমাবার আয়োজন করে
নতুন দিন সবার সামনে উদ্ভাসিত হবে
নতুন দিনের আলো উপহার দিয়ে।
নতুন দিন উপহার দিতে, পৃথিবীকে পার
করতে হয়, আরেকটি একঘেয়ে রাত।

কমেন্ট করুন
শিক্ষার্থী | পরিসংখ্যান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সেশন: ২০০০ - ২০০১

মোহাম্মদ সেলিম রেজা

সেশন: ২০০০ - ২০০১

0