লাং ক্যান্সার

ক্যান্সার কী?

ক্যান্সার হচ্ছে শরীরের একটি অংশের অস্বাভাবিক অনিয়ন্ত্রিত কোষগুলির দ্বারা সৃষ্ট একটি রোগ। বিভিন্ন ধরণের ক্যান্সারের মধ্যে, কিছু ক্যান্সার আছে যাদের কিছু অংশের কোষগুলি চারপাশের টিস্যুতে ছড়িয়ে পড়ে এবং বিস্তার না করে বিভাজিত হতে শুরু করে।

ক্যান্সার মানুষের শরীরের প্রায় যে কোনো জায়গা থেকে সৃষ্টি হতে পারে, যা কোষগুলির কোষ থেকে তৈরি হয়। সাধারনত, মানুষের কোষ বৃদ্ধি পায় এবং নতুন কোষ গঠন করে যা শরীরের প্রয়োজন হয়। কোষ বৃদ্ধ হয়ে গেলে বা ক্ষতিগ্রস্ত হলে, তারা মারা যায় এবং নতুন কোষগুলি তাদের স্থান নেয়।

তখন ক্যান্সার বিকশিত হয়, তবে এই সুশৃঙ্খল প্রক্রিয়াটি ভেঙ্গে যায়। কোষগুলো আরও বেশি অস্বাভাবিক হয়ে উঠে, পুরাতন বা ক্ষতিগ্রস্থ কোষগুলি যখন মারা যাওয়ার কথা তখন তারা বেঁচে থাকে এবং নতুন কোষগুলির যখন প্রয়োজন হয় না, তখন তারা সৃষ্টি হয়। এই অতিরিক্ত কোষগুলি অনিয়ন্ত্রিত ভাবে বাড়তে থাকে এবং এগুলোকে আমরা টিউমার বলি ।

ক্যান্সার টিউমারগুলি ক্ষতিকারক, যার মানে তারা কাছাকাছি টিস্যুতে ছড়িয়ে পড়ে বা আক্রমণ করতে পারে। উপরন্তু, এই টিউমার বেড়ে গেলে, কিছু ক্যান্সার কোষ শরীর থেকে দূরবর্তী জায়গায় রক্ত প্রবাহের মাধ্যমে বেরিয়ে যেতে পারে এবং মূল টিউমার থেকে সরে গিয়ে দূরে নতুন টিউমার তৈরি করে। একটি ক্যান্সার যখন প্রথম স্থান থেকে অন্য জায়গায় ছড়িয়ে পড়ে তাকে বলা হয় মেটাসটেটিক ক্যান্সার। এই প্রক্রিয়া টিকে বলা হয় মেটাস্ট্যাসিস।

ক্যান্সারের ধরনগুলি সাধারণত অঙ্গ বা টিস্যুর জন্য নামকরণ করা হয় যেখানে ক্যান্সার গঠিত হয়। উদাহরণস্বরূপ, ফুসফুসের কোষে ফুসফুসের ক্যান্সার শুরু হয় এবং মস্তিষ্কের ক্যান্সার মস্তিষ্কের কোষে শুরু হয় ।

ফুসফুসের ক্যান্সার কেন হয় ?

বিশ্বে ৮০ভাগ ফুসফুসের ক্যান্সার হয় ধূমপান জনিত কারণে। শ্বাস-প্রশ্বাস এর মাধ্যমে সিগারেট এর ধোঁয়া আমাদের ফুসফুসে যাচ্ছে, এটাই ফুসফুসের ক্যান্সার এর সবচেয়ে বড় কারণ। আরেকটি কারণ হলো রাডন গ্যাস। এটি একধরণের তেজস্ক্রিয় গ্যাস যা ইউরেনিয়ামের ক্ষুদ্র কণা হিসাবে সমস্ত পাথর ও মৃত্তিকা থেকে আসে। এছাড়াও, কিছু পদার্থ ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়। তার মধ্যে অ্যাসবেস্টস, সিলিকা, এবং ডিজেল নিষ্কাশন অন্তর্ভুক্ত । বায়ু দূষণ ফুসফুসের ক্যান্সার এর আরেকটি কারণ। আপনার যদি পূর্বে ফুসফুসের ক্যান্সার হয়ে থাকে অথবা আপনার পরিবারে যদি কেউ ফুসফুসের ক্যান্সার এ আক্রান্ত হয়েছে এমন কেউ থাকে তাহলে আপনার ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়তে পারে।

ফুসফুসের ক্যান্সার এর ধরনঃ

ফুসফুসের ক্যান্সার সাধারণত দুই ধরনের:

১. নন-স্মল সেল ফুসফুসের ক্যান্সার (এনএসসিএলসি) এবং

২. স্মল সেল ফুসফুসের ক্যান্সার (এসসিএলসি)।

ফুসফুসের ক্যান্সার কোন স্টেজ এ আছে সেটা নির্ভর করে ক্যান্সারটি ফুসফুস থেকে লিম্ফ নোড বা অন্যান্য অঙ্গগুলিতে ছড়িয়ে পড়েছে কিনা তার উপর। যেহেতু ফুসফুস বড়, তাই টিউমারগুলি খুঁজে পাওয়ার অনেক আগেই বড় হয়ে যেতে পারে। এমনকি যখন লক্ষণগুলি প্রকাশ পায় যেমন- কাশি এবং ক্লান্তি, তখন মানুষ মনে করে যে এগুলো অন্য কারণে ঘটছে। এই জন্য, প্রাথমিক পর্যায়ে ফুসফুসের ক্যান্সার (ধাপ -১ এবং ২) শনাক্ত করা কঠিন।

নন-স্মল সেল ফুসফুসের ক্যান্সার:

ফুসফুসের ক্যান্সারের প্রায় ৮৫ শতাংশই হলো নন-স্মল সেল ফুসফুস ক্যান্সার। এটা সাধারণত তিন ধরনের:

১. অ্যাডেনোক্যাক্রিনোমা,

২. স্কুমাউস সেল কার্সিনোমা,

৩. বড় সেল কার্সিনোমা।

নন-স্মল সেল ফুসফুসের ক্যান্সারের ধাপসমূহ:

ধাপ ১: ক্যান্সার শুধু ফুসফুসে অবস্থান করে এবং লিম্ফ নোডগুলিতে ছড়িয়ে পড়ে না।

ধাপ ২: ক্যান্সার ফুসফুসে অবস্থান করে এবং নিকটবর্তী লিম্ফ নোডগুলিতে ছড়িয়ে পড়ে।

ধাপ ৩: ক্যান্সার ফুসফুসে এবং বুকের মাঝখানে লিম্ফ নোডে পাওয়া যায় ।

ধাপ ৪: ক্যান্সার ফুসফুসের চারপাশের এলাকায় বা শরীরের অন্য অংশ যেমন লিভার বা অন্যান্য অঙ্গগুলিতে, এবং উভয় ফুসফুসে ছড়িয়ে পড়ে।

স্মল সেল ফুসফুসের ক্যান্সার:

স্মল সেল টিউমারগুলি নন-স্মল সেল টিউমার থেকে অনেক দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং এটা দ্রুত ফুসফুস থেকে শরীরের অন্য অঙ্গগুলোতে ছড়িয়ে পড়ে।

স্মল সেল ফুসফুসের ক্যান্সারের ধাপ সমূহ:

ধাপ ১: বুকের এক পাশের ফুসফুসে ক্যান্সার পাওয়া যায়, এবং ফুসফুসের এক অংশ এবং নিকটবর্তী লিম্ফ নোডগুলি তে এটা ছড়িয়ে পড়ে।

ধাপ ২: ক্যান্সার শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে পড়েছে।

কমেন্ট করুন
শিক্ষক | গণিত বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়