স্মৃতিতে তসলিম স্যার

আমি স্যারের ক্লাস করার সুযোগ পাইনি, তবে বিভাগীয় প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের সংগঠন, ডুসডার অনুষ্ঠানে কিউএমএইচ স্ট্যাটিস্টিক্স ক্লাবের হয়ে কাজ করার সুবাদে স্যারের সাথে যোগাযোগ হয়েছিল।

খুব সম্ভবত অনুষ্ঠানটি ছিল গত বছর (সাল ২০২০) এর ফেব্রুয়ারির ৭ তারিখ। সেদিন কাজ শেষ করতে করতে সন্ধ্যা পার হয়ে যায়, স্যার তখনও ডিপার্টমেন্টে ছিলেন। আমাকে দেখামাত্র আমার বাসা কোথায় সেটা জিজ্ঞেস করলেন। আমি বললে স্যার শুনে আমাকে তাঁর গাড়িতে করে বাসায় নামিয়ে দিয়ে গিয়েছিলেন। আমার বাসা আর স্যারের বাসা কাছাকাছি থাকলেও আমার জন্য স্যারকে বেশ খানিকটা পথ ঘুরে যেতে হয়েছিল। স্যারকে বলেছিলাম, “স্যার কাছাকাছি কোথাও নামিয়ে দিলেও হবে, আমি চলে যেতে পারবো।” তবুও তিনি নিজে দায়িত্ব নিয়ে আমাকে ঠিক বাসার সামনে নামিয়ে দিয়ে তারপর গিয়েছিলেন। এমনকি গাড়িতে তিনি বারবার বলছিলেন, “বাসায় কল করে বলেন টেনশন না করতে। স্যার নামিয়ে দিয়ে যাবেন।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক সম্বন্ধে আমার ধারণা সেদিন অনেক উঁচু স্থানে চলে যায় স্যারের বিনয় আর শিক্ষার্থীর প্রতি দায়িত্বশীলতা দেখে। একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শুধু পাঠদানেই নয়, তিনি তাঁর কর্মে, মানবিকতায়, নিষ্ঠায় শিক্ষার্থীদের মানবিক দিকগুলো উদ্দীপ্তকরণে নিয়োজিত থাকেন। স্যার ছিলেন তাঁদেরই একজন। তিনি আজ আমাদের মাঝে নেই, তবে তাঁর দেখানো পথ অনুসরণীয় হয়ে থাকবে আজীবন। স্যারের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা।

কমেন্ট করুন
শিক্ষার্থী | পরিসংখ্যা বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

0