বর্ণ পূজারী

বর্ণ পূজারী
বর্ণান্ধ প্রকৃতির কোলে চড়ছি আমরা
সবুজ থেকে হলুদে হয় নিজের পত্র পল্লব দান
আকাশের শুভ্রমেঘে যে কবি শব্দ খেলে
কালো মেঘের চাদরে সে শব্দ হারিয়ে যায়
পূর্ণিমার সোনালী আলোতে যার শব্দরসের মেলা বসে
অমানিশার নিকষ কালোকে সে-ই টেনে আনে
নিছক যাতনার রূপক এর আদলে!
অমৃতের স্বাদ নেওয়া মানুষেরাই নাকি শ্বেতকায় হয়
সেই ইউরোপের যুইস আর পারস্যের আর্য
শ্বেতকায় শাসন সেই প্রারম্ভিক সভ্যতা থেকে
দিনভর গাত্রবর্ণ লুকানোর বিজ্ঞাপনে যাপিত হয়ে
সন্ধ্যায় প্রতিবাদ নামে!
প্রতিবাদের আলোকে বৃহত্তরের মনতুষ্টি মাত্র
বর্ণচোরা সামগ্রীতে যারা মৌলিক চাহিদার আরশ বুনে
দিনান্তে তারাই ধ্বজা নামিয়ে চলে যুগপৎভাবে
সেই ডোম থেকে চন্ডাল নিজ বাসভূমে আজ পরাহত
তাদের আরাধ্য দেবতাও জায়গা নিয়েছে আস্তাকুঁড়েয়
কালোর আলোয় জায়গা দিয়ে তারাই আজ অস্পৃশ্য
সাতরঙাকে জাপটে ধরে আজ তাদের ছুরিকাঘাতে
জর্জরিত
তোমাতেই সব জন্ম আর তোমাতেই সব লীন
তাও অক্ষমমোহে নামে বিতৃষ্ণার অন্তহীন গরলস্রোত

গৌরবর্ণের এই জগতে তুচ্ছ হয়েছে কালো
রাতের আঁধার নিগৃহীতে দিনের আলোয় ভালো।

কমেন্ট করুন
প্রাক্তন শিক্ষার্থী | সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং, চুয়েট

0