সম্পাদকীয় – অক্টোবর ২০২০

আমাদের (ঢাকা দক্ষিণের) মেয়র সাহেব সম্ভবত কাজ খুঁজে পাচ্ছেন না। নিজেকে বলছেন, ‘চারিদিকে করোনা, কিছু একটা করো না!’  

গত মাসে তিনি ভাবলেন, শহরের রাস্তা থেকে সব কুকুর সরিয়ে ফেলতে হবে। হয়তো তাঁর ধারণা, এগুলো ‘বিপথগামী কুকুর’ (Google Translate-এ ‘stray dog’-এর বাংলা অনুবাদ ‘বিপথগামী কুকুর’)! একজন ব্যারিস্টার হয়েও তিনি ভাবেননি, কুকুর মেরে ফেলা বা স্থানান্তর করা বেআইনী। কুকুরের সংখ্যা কমানোর একমাত্র বৈধ উপায় হলো নিউটারিং বা বন্ধ্যাকরণ।

জনরোষের ভয়ে সিটি কর্পোরেশনের লোকেরা গোপনে কাজটি সারতে চেষ্টা করেছে। অর্থাৎ, নানা এলাকা থেকে কুকুরচুরি করেছে। এ কাজের বাজেট থেকে কেউ হয়তো পুকুরচুরিও করেছে।

কুকুরের আরেক নাম ‘সারমেয়’ (উচ্চারণ ‘শারমেয়ো’)। তাই, ঘটনাটির নাম দেয়া যেতে পারে ‘অসার মেয়রের সারমেয় কাণ্ড’।

এরপর মেয়র সাহেবের চিন্তার নেটে ধরা পড়লো ইন্টারনেট। তাঁর মনে হলো, ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেটের তারে  নিরাপত্তা ও সৌন্দর্য ব্যাহত হচ্ছে। তাই তাঁর লোকেরা ওয়ান ফাইন মর্নিং তারগুলো কেটে ফেললো। তিনি ভাবেননি, আন্ডারগ্রাউন্ড সংযোগের ব্যবস্থা না করে তারগুলো কাটা ঠিক হবে না। এটাও ভাবেননি, এখন স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে অনলাইন ক্লাস চলছে, তাই হুট করে ইন্টারনেট সংযোগ ‍বিচ্ছিন্ন করলে মানুষ ঝামেলায় পড়বে। মেয়র সাহেব এরপর আর কী ‘বিপ্লব’ করেন, তা দেখার অপেক্ষায় রইলাম।

কমেন্ট করুন

প্রাক্তন শিক্ষার্থী

পরিসংখ্যান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

সেশনঃ ১৯৮৩ - ৮৪

জাফর আহমেদ খান

প্রাক্তন শিক্ষার্থী পরিসংখ্যান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সেশনঃ ১৯৮৩ - ৮৪

0